উচ্চ মাধ্যমিক জীববিজ্ঞান দ্বিতীয় পত্র (HSC Biology 2nd Paper)


ষষ্ঠ অধ্যায় : মানব শারীরতত্ত্ব : বর্জ্য ও নিষ্কাশন
(Chapter 6. Human Physiology: Wastes and Excretion)


প্রধান শব্দভিত্তিক সারসংক্ষেপ


♦ রেচন: জীবদেহের নাইট্রোজেনঘটিত বর্জ্য পদার্থ নিষ্কাশন প্রক্রিয়াই হলো রেচন।

♦ অসমোরেগুলেশন: যে শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়ায় দেহের অতিরিক্ত পানি নিষ্কাশিত হয়ে দেহে পানির সমতা রক্ষিত হয় তাকে অসমোরেগুলেশন বলে।

♦ বৃক্ক: বৃক্ক (kidney) মেরুদণ্ডী প্রাণীদের রেচন অঙ্গের নাম।

♦ নেফ্রন: বৃক্কের গঠন ও কাজের একককে বলা হয় নেফ্রন। প্রতিটি বৃক্কের অভ্যন্তরে নেফ্রন (nephron) নামে প্রায় দশ থেকে বারো লক্ষ নালিকা থাকে।

♦ কিডনি বিকল: ডায়রিয়ার কারণে অতিরিক্ত পানি শূন্যতা সঠিক সময়ে পূরণ না করলে কিডনি বিকল হতে পারে। আবার বিশেষ কোনো ওষুধ সেবন করার কারণেও কিডনি বিকল হতে পারে।

♦ ভ্যাসোপ্রেসিন: ভ্যাসোপ্রেসিন নামক একটি হরমোন যা মূত্রনালিতে পানির পুনঃশোষণ নিয়ন্ত্রণ করে।

♦ হিমোডায়ালাইসিস: হিমোডায়ালাইসিসে রক্ত ধমনী থেকে রক্ত একটি মেশিনে প্রবেশ করানো হয়। এখানে ব্যাপন প্রক্রিয়ায় রক্ত থেকে নাইট্রোজেনঘটিত বর্জ্য পদার্থ অপসারিত হয়।

♦ মালপিজিয়ান বডি: বৃক্কের বোম্যান্স ক্যাপসুল ও গ্লোমেরুলাসকে একত্রে মালপিজিয়ান বডি বা রেনাল করপাসল বলে।

♦ অতিসূক্ষ্ম ছাঁকন (Ultrafiltration): বৃক্কের রেনাল করপাসলে গ্লোমেরুলাস থেকে বোম্যান্স ক্যাপসুলে রক্তের যে সূক্ষ্ম ছাঁকন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয় তাকে অতিসূক্ষ্ম ছাঁকন বলে।

♦ ADH: Anti di uretic hormone. এই হরমোন বৃক্কে পানির পুন:শোষণ নিয়ন্ত্রণ করে।

সূত্র: জীবিজ্ঞান দ্বিতীয় পত্র, একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণি

ড. মোহাম্মদ আবুল হাসান

গাজী সালাহউদ্দিন সিদ্দিকী