উচ্চ মাধ্যমিক জীববিজ্ঞান দ্বিতীয় পত্র (HSC Biology 2nd Paper)


পঞ্চম অধ্যায় : মানব শারীরতত্ত্ব : শ্বসন ও শ্বাসক্রিয়া
(Chapter 5. Human Physiology: Breathing and Respiration)


প্রধান শব্দভিত্তিক সারসংক্ষেপ


♦ শ্বসনতন্ত্র : দেহের যে অঙ্গগুলো শ্বসন প্রক্রিয়ায় সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে, তাদের সমষ্টিকে শ্বসনতন্ত্র বলে।

♦ সাইনুসাইটিস: নাকের চারপাশের অস্থিসমূহে বায়ুপূর্ণ কুঠুরী থাকে। এ কুঠুরীগুলোকে বলা হয় সাইনাস। আর এ সাইনাসের প্রদাহকে বলা হয় সাইনুসাইটিস।

♦ হিমোগ্লোবিন: হিমোগ্লোবিন লাল বর্ণের লৌহঘটিত শ্বাসরঞ্জক (Respiratory Pigment)। হিমোগ্লোবিনের সাথে অক্সিজেন এবং কার্বন ডাইঅক্সাইড বিক্রিয়া করে যথাক্রমে অক্সি-হিমোগ্লোবিন এবং কার্বামাইনো হিমোগ্লোবিন নামে দু ধরনের অস্থায়ী যৌগ গঠন করে।

♦ ওটিটিস মিডিয়া: ইউস্টেসিয়ান নালির মাধ্যমে আমাদের মধ্যকর্ণ সংক্রমিত হতে পারে। এ সংক্রমণকে ওটিটিস মিডিয়া বলে।

♦ অ্যালভিওলাস: ফুসফুসের শেষপ্রান্তে ছোট বেলুনের মতো বায়ুথলিকে অ্যালভিওলাস বলে।

♦ সারফ্যাকট্যান্ট: সারফ্যাকট্যান্ট একটি রাসায়নিক পদার্থ যা ফুসফুসের টিস্যুকে লেগে থাকার হাত থেকে রক্ষা করে।

♦ ডায়াফ্রাম: বক্ষ ও উদরের মাঝখানে অবস্থিত একটি পর্দাকে ডায়াফ্রাম বলে। এটি শ্বাস গ্রহণ ও শ্বাস ত্যাগে সাহায্য করে।

♦ সাইনাস: নাকের চারপাশের অস্থিসমূহে বায়ুপূর্ণ কুঠুরী থাকে। এ কুঠুরীগুলোকে বলা হয় সাইনাস।

♦ এপিগøটিস: স্বরযন্ত্রের উপরিভাগে অবস্থিত জিহ্বাকৃতির ঢাকনাকে উপজিহ্ববা বলে। উপজিহ্বাকে এপিগ্লটিসও (Epiglottis) বলা হয়। এটা তরুণাস্থি দ্বারা গঠিত।

♦ শ্বাসরঞ্জক: হিমোগ্লোবিনকে শ্বাসরঞ্জক (Respiratory Pigment) বলে। এটি রক্তের মাধ্যমে অক্সিজেন ও কার্বন ডাই অক্সাইড পরিবহণ করে।

সূত্র: জীবিজ্ঞান দ্বিতীয় পত্র, একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণি

ড. মোহাম্মদ আবুল হাসান

গাজী সালাহউদ্দিন সিদ্দিকী